বাংলাদেশ ক্রিকেটের চেনা একটি নাম – তামিম ইকবাল খান। চাচা আকরাম খানের হাত ধরে এসেছিলেন ক্রিকেট বিশ্বে। ওয়ানডে ক্রিকেটে অভিষেকের মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশেও আছে মারমুখী দায়িত্বশীল ওপেনার। ২০০৭ সালে ভারতের জহির খানকে ডাউন দ্যা উইকেটে ছয় মেরে জয় ছিনিয়ে আনে। সেদিন থেকে আজ পর্যন্ত জাতীয় দলের একটি চেনা নাম তামিম ইকবাল খান।

বাংলাদেশ ক্রিকেটকে দীর্ঘদিন সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছেন তামিম ইকবাল। কখনো ভালো সময়, কখনো খারাপ সময়। তামিম যখন ভালো খেলেন খুব ভালো খেলেন, আর যখন খারাপ খেলেন তখন খুব খারাপ সময় পার করতে হয়। সেই ২০১৯ সালের ঝাঁক-ঝমক বিশ্বকাপ থেকেই তামিম ইকবালের ব্যাট যেন হাসতেই চাইছে না। বিশ্বকাপে তামিম ইকবাল তেমন কোনো ইনিংসই উপহার দিতে পারে নি।

আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরেও ব্যাট হাতে কোনো করতে পারছেন না তামিম ইকবাল, তবে এবার দলের নায়ক হিসেবে। এমনিতে তামিম ইকবাল তার ইনিংস নিয়ে চাপে আছেন, আবার তাকে দেওয়া হয়েছে অধিনায়কের বুঝা। অধিনায়ক হিসেবেও কোনো সুবিধা দিতে পারেন নি। প্রথম ম্যাচে ২য় ওভারেই ভুল সিদ্ধান্তে হারিয়ে ফেলে দলের রিভিও। এছাড়াও আরও অনেক কিছু।

[the_ad id=”11580″]

বাংলাদেশের ৫ অন্যতম সেরা ক্রিকেটারদের মধ্যে একজন। বাংলাদেশের হয়ে খেলছেন সেই ২০০৭ সাল থেকে। আর কয়েকদিন খেলার পরই অবসরের চিন্তা করতে হবে তাকে। কিন্তু শেষ সময়ে কেন তামিমের সাথে এমনটা হচ্ছে। বাংলাদেশের অন্যতম ও সেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। কিন্তু তার কিছু বাজে ইনিংসে সব ভুলে যাচ্ছে মানুষ। একসময় তামিম ইকবালের ব্যাটে রান আসলেই জয় পেত বাংলাদেশ। কিন্তু তামিম তার সেই ফর্ম হারিয়ে ফেলছে। তামিম অপেক্ষায় আছে একটি টার্নিং পয়েন্টের জন্য।

বিশ্বের সকল জনপ্রিয় ক্রিকেটাররা তাদের জনপ্রিয় ধরে রেখেছে তাদের ভালো পারফর্মেন্স দিয়ে। সকলেই তাদের স্ব-ফর্মে বিদায় নিয়েছেন। শ্রীলঙ্কার তারকা বোলার লাসিথ মালিঙ্গা তার শেষ ম্যাচে বাংলাদেশকে নাকানি চুবানি খাইয়েছে। এছাড়াও আরও অনেক তারকারা তাদের অবসরের আগে ভালো খেলে ক্রিকেটকে বিদায় জানিয়েছেন।

এখন যদি তামিম ইকবাল তার ভালো ইনিংসগুলো আর না পায় তাহলে তামিম ইকবালকে মনে রাখা কঠিন হয়ে যাবে। অবসর নেওয়ার সময় সমর্থকরা তাকে দলের বোঝা মনে করবে। তাই তামিম ইকবালকে ঘুরে দাড়াতে হবে। কথায় আছে, ” শেষ ভালো যার, সব ভালো তার “